Rnewsbd.com

২৪ ঘন্টা সারা বিশ্ব ও বাংলাদেশের খবর জানতে আমাদের সঙ্গে থাকুন।

জাকির নায়েককে ভারতে ফেরত পাঠাতে আরও প্রমাণ চায় মালয়েশিয়া

বিতর্কিত ইসলামিক বক্তা জাকির নায়েককে ভারতে ফেরত পাঠানোর আগে নয়াদিল্লির কাছ থেকে অভিযোগের বিষয়ে প্রমাণ চেয়েছে মালয়েশিয়া। বৃহস্পতিবার ভারত সফররত মালয়েশিয়ার ভবিষ্যৎ প্রধানমন্ত্রী আনোয়ার ইব্রাহিম মুসলিম বুদ্ধিজীবীদের সঙ্গে এক পার্শ্ববৈঠকে এ কথা জানিয়েছেন। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস এ খবর জানিয়েছে।

জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে তরুণদের সন্ত্রাসবাদে উসকানি, ঘৃণাবাদী বক্তব্য ও সাম্প্রদায়িক উস্কানির অভিযোগ এনেছে ভারতের জাতীয় তদন্ত সংস্থা (এনআইএ)। ২০১৬ সালে ঢাকায় গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলাকারীরা জাকির নায়েকের বক্তব্যে অনুপ্রাণিত হয়েছিল বলে তথ্য পাওয়ার দাবি করে এনআইএ’র তদন্তকারীরা। হামলাকারী তরুণদের ঘৃণাবাদী বক্তব্যের মাধ্যমে অনুপ্রাণিত করার অভিযোগেরও তদন্ত চলছে জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে।

দুই বছর আগে ভারত ছেড়ে যাওয়া জাকির এখন সৌদি আরব ও মালয়েশিয়ায় বসবাস করছেন। বিগত নাজিব রাজাকের নেতৃত্বাধীন মালয়েশিয়ার সরকার জাকির নায়েককে স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ দেয়। গত বছর তাকে ফেরত পাঠানোর অনুরোধ জানায় ভারত। মালয়েশিয়ার সঙ্গে ভারতের বন্দিবিনিময় চুক্তি থাকলেও গত বছরের জুলাইয়ে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ বলেছিলেন, জাকির নায়েকের মামলায় সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে সব বিষয় খতিয়ে দেখা হবে।

বৃহস্পতিবার আনোয়ার ইব্রাহিম বলেন, ‘আমরা দেখেছি প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ এরইমধ্যে এই বিষয় খতিয়ে দেখার কথা বলেছেন। আমরা এই মামলায় ভারতের কাছ থেকে আরও যুক্তি পাওয়ার অপেক্ষায় আছি। কারণ, মালয়েশিয়া সরকারের কাছে এখন শুধু তাকে (নায়েক) ভারতে ফেরত পাঠানোর একটি অনুরোধ করা হয়েছে।’

ইব্রাহিম বলেছেন, মালয়েশিয়া এখন যা চায় তা হলো জাকির নায়েককে ফেরত পাঠানোর অনুরোধের বিষয়ে ‘নথি ও কারণ’ সরবরাহ করুক ভারত। তিনি বলেন, আমার মনে হয় মালয়েশিয়া সরকারের এটা খতিয়ে দেখতে চাওয়াকে আপনারা অবশ্যই প্রশংসা করবেন। মামলার বিষয়টি উল্লেখ করেছে ভারত। আমরা এটাকে সম্মান করি। কিন্তু মালয়েশিয়া সরকারের এটা খতিয়ে দেখা উচিত এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখা দরকার। আমি যদিও এখন এই সরকারে নেই, তবুও আমি বুঝতে পারছি মাহাথির ব্যক্তিগতভাবে ঘটনাটি খেয়াল রাখছেন।

ভারত প্রমাণ সরবরাহ করলে মালয়েশিয়া ব্যবস্থা নেবে কিনা প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমার মনে হয় এই পর্যায়ে মালয়েশিয়া নথির জন্য অপেক্ষা করছে। যদি তারা বলে এরইমধ্যে সেসব সরবরাহ করা হয়ে গেছে তাহলে মালয়েশিয়া ইতিবাচকভাবেই এটা দেখবে। তারপর সরকার নিশ্চিতভাবে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।

এর আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠকের পর ইব্রাহিম বলেন, তিনি ভারতীয় নেতার কাছে এটা স্পষ্ট করেছেন, সন্ত্রাসবাদ ইস্যুতে কোনোভাবেই সমর্থন বা ক্ষমা করবে না মালয়েশিয়ার সরকার।

মোদির সঙ্গে বৈঠকে ইব্রাহিম দ্বিপক্ষীয়, পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক বিষয়গুলো আলোচনা করেন। ইব্রাহিম মালয়েশিয়ার ক্ষমতাসীন জোটের প্রধান রাজনৈতিক দল পার্টি কেয়াদিলান রাকিয়াতের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় মোদি তাকে অভিনন্দন জানান।

গত বছর মালয়েশিয়ায় অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আনোয়ার ইব্রাহিম ও মাহাথির মোহাম্মদের জোট পাকাতান হারাপান জয়লাভ করে। মাহাথির প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নিয়ে গত বছর কারাগার থেকে ইব্রাহিমকে মুক্ত করেন। জোট গঠনের শর্ত অনুযায়ী দুই বছরের মধ্যে মাহাথির সরে গেলে ইব্রাহিমই মালয়েশিয়ার পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী। তবে এখন এই পরিবর্তনের জন্য কোনও সময়সীমা নির্দিষ্ট করতে চান না ইব্রাহিম। তিনি বলেন, সঠিক সময়েই আমি প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেবো।
সুত্র- Bangla Tribune

Updated: 11/01/2019 — 5:44 PM
© ২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত আর নিউজ বিডি © আমাদের পেইজে অথবা সাইটের কোন নিউজ নিয়ে অভিযোগ থাকলে আমাদের পেইজে মেসেজ দিয়ে জানাবেন, আমরা সাথে সাথে তা ডিলেট করে দিব, ধন্যবাদ।