ছাত্রী হলে জন্ম নেয়া সেই নবজাতকের বাবার খোঁজ মিলেছে

ছাত্রী হলে জন্ম নেয়া সেই নবজাতকের বাবার খোঁজ মিলেছে

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা হলে সন্তান জন্ম দেওয়া ছাত্রীকে স্ত্রী হিসেবে দাবি করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্র। তিনি নিজেকে মৃত

নবজাতকের বাবা হিসেবে দাবি করেছেন। এদিকে সন্তান জন্ম দেওয়ার পর ভয় পেয়ে ওই ছাত্রী নবজাতককে ট্রাংকে লুকিয়ে রেখেছিলেন বলে দাবি করেছেন।

নবজাতকটির পরে হাসপাতালে মৃত্যু হয়। নবজাতকের মরদেহ রোববার (১৭ মার্চ) দুপুরে ছাত্রীর বাবার কাছে হস্তান্তর করা হয়।

ওই ছেলের নাম রনি মোল্লা বলে জানা গেছে। রনিও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। রনির বাড়ি পাবনায়। সে এইচএসসি পড়েছেন পাবনার শহীদ সরকারি বুলবুল কলেজে।

সন্তান জন্ম দেয়া ছাত্রীও একই কলেজ থেকে পড়াশোনা করেছেন। মেয়েটির বাড়িও পাবনায়। দুজনের বাড়ি একই জেলাতে হওয়ার সুবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন তারা। এমনকি দুজনেই হলে থাকতেন বিধায় তাদের সম্পর্ক আরও গভীর হয়ে ওঠে।

বন্ধু-বান্ধবদের কাছ থেকে জানা যায়, ওই ছাত্রী ও রনির মধ্যকার দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক। প্রেম থেকে একপর্যায়ে তারা শারীরিক সম্পর্কে জড়ান। তারপরই ওই ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। তবুও অন্তঃসত্ত্বার বিষয়টি গোপন রাখার সিদ্ধান্ত নেয়। রনির সঙ্গে ওই ছাত্রীর বেশ কয়েকবার বাগবিতণ্ডা হয়। একারণে তাদের সম্পর্কের অবনতিও হয়েছে।

বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা হলের কয়েকজন ছাত্রী জানান, হলের একটি কক্ষে ওই ছাত্রীসহ চারজন থাকতেন। তাঁদের মধ্যে দুজনের পরীক্ষা শেষ হওয়ায় বেশ কিছুদিন ধরে তাঁরা হলে থাকেন না। আরেক ছাত্রীর ফাইনাল পরীক্ষা চলছে। তিনি পড়াশোনা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। তাই বিষয়টি সেভাবে কারও নজরে পড়েনি।

ওই ছাত্রীর চিৎকার শুনে আশপাশের শিক্ষার্থীরা তাঁর প্রসববেদনার কথা জানতে পারেন। পরে তাঁকে বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসাকেন্দ্রে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে এনাম মেডিকেল কলেজে স্থানান্তর করেন।

ওই ছাত্রীর মা বলেন, ‘বিয়ের আগে তারা আমাকে জানিয়েছিল। পরে আমরা মেনে নিই।’

ছাত্রীর মা বলেন, ‘আমার মেয়ে বারবার বলছে, সে বাচ্চাটিকে মেরে ফেলতে চায়নি। সে ভয় পেয়ে গিয়েছিল। কী করতে হবে, বুঝতে পারেনি। তাই এ রকম করেছে।’

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রের দায়িত্বরত চিকিৎসক আবু জাফর মোহাম্মদ সালেহ বলেন, নবজাতককে হাসপাতালে আনার পর তার সম্পূর্ণ শরীরর নীল রঙ ধারণ

করেছিল। অক্সিজেন দিয়ে নবজাতকেটিকে এনাম মেডিকেলে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাত পৌনে ১০টার দিকে নবজাতকের মৃত্যু হয়।

এদিকে ওই ঘটনার পর থেকে রনির খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর রনি তার ফেসবুকে স্ট্যাটাসে তাদের বিবাহের বিষয়টি স্বীকার করেন।

এ বিষয়ে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক মোহা. মুজিবর রহমান জানান, বিষয়টি আমরা জানি এবং এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে ৪ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাদের ১০ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

তিনি বলেন, হলে সন্তান প্রসব অবৈধ। এটা কেন হলো, কী কারণে এমটি ঘটলো তা জানার জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর দুই শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

যোগাযোগ করা হলে রনি মোল্লার বাবা রশিদ মোল্লা বলেন, ‘দেড় বছর আগে শুনেছিলাম, আমার ছেলে আমাকে না জানিয়ে বিয়ে করেছে। প্রথমে মন খারাপ হলেও পরে মেনে নিই। বউকে বাড়ি নিয়ে আসতেও বলি। ছেলে কেন যেন কখনো মেয়েটিকে বাড়িতে নিয়ে আসেনি।’

সন্তান জন্ম দেওয়া ওই ছাত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি নিজেকে রনি মোল্লার স্ত্রী হিসেবে স্বীকার করেন। তিনি বলেন, ‘আমরা বিবাহিত। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ে সেভাবে কাউকে জানানো হয়নি। অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার পর ডাক্তার দেখিয়েছি কয়েকবার। ডাক্তার বলেছিলেন, ২০ মার্চ বাচ্চা ডেলিভারি হওয়ার সম্ভাব্য তারিখ।’


Copyright © (2018) All Rights Reserved Rnewsbd.com
Desing & Developed BY NewsSKy